https://tipswali.com/wp-content/uploads/2020/08/ইলেকট্রিক-প্রেসার-কুকার.jpg

ইদানিং ইলেকট্রিক প্রেসার কুকারের ব্যবহার প্রায় চোখে পরার মতো। বিশেষ করে শহর অঞ্চলে প্রায় প্রতিটি ঘরেই ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার এর দেখা মিলবে। প্রিয় পাঠাক, আজকের লেখা জুড়ে কথা হবে ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার কেনার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস নিয়ে।

ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার ও রেগুলার প্রেসার কুকারের পার্থক্য

ইলেকট্রিক প্রেসার কেনার আগে চলুন রেগুলার প্রেসার কুকারের মধ্যে এর পার্থক্য জেনে নেওয়া যাক। নাম শুনেই বোঝা যায় বিদ্যুৎ ও ইলেকট্রিক টাইমার দিয়ে পরিচালিত কুকারকেই ইলেক্ট্রনিক প্রেসার কুকার বলে। এ ধরনের কুকারে সাধারণত একই সাথে বিভিন্ন মেনু বা আইটেম রান্না করা যায় এবং কি পরিমান প্রেসার বা তাপ দিবেন তার উপর আপনার সম্পূর্ণ কন্ট্রোল থাকে। এগুল কিছুটা মাইক্রোওভেন এর মতো।

অপর দিকে রেগুলার প্রেসার কুকার বলতে বিদ্যুৎ ছাড়া সাধারন গ্যাসের চুলায় যে কুকারের সাহায্যে রান্না করা হয়ে থাকে।

আপনি যদি রান্নায় দক্ষ না হয়ে থাকেন অথবা ভয় থেকে থাকে তাহলে ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার আপনার জন্য সেরা সল্যুশন। হতে পারে। বিশেষ করে ছাত্র-ছাত্রী হোস্টেল, ব্যাচেলর বাসায় ইলেকট্রিক প্রেসার কুকারে রান্না করতে বেশি দেখা যায়।

বাংলাদেশের বাজারে ২০০০ টাকা থেকে শুরু করে প্রায় ১৫০০০-২০০০০ টাকার ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার পাওয়া যায়। তবে আপনি বাসার জন্য মোটামুটি ৩৫০০-৫০০০ টাকায় একটি কুকার কিনে নিলে আরামসে রান্না কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন।

ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার কেনার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখবেন

প্রেসার কুকার সাধারণত এক ধরনের রান্না টুলস। তবে ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার কেনার আগে আপনার কিছু বিষয় জানা উচিত। যেমনঃ

সাইজ

সব সময় সাইজ ব্যাপার না হলেও  কিছু কিছু ক্ষেত্রে পারফেক্ট সাইজ না হলে কাজ করে আম-ইন রান্না-বান্না করে শান্তি পাওয়া যায় না। বায় দ্যা রাস্তা প্রেসার কুকার নানা সাইজের হয়ে থাকে । আকার অনুসারে আলাদা আলাদা পরিমান খাবার রান্না করা যায়। তাই আপনি কয়জনের খাবার রান্না করার জন্য কুকার কিনছেন সেটি মাথায় রাখুন।

লাইনার ম্যাটারিয়াল

অনেক ইলেকট্রিক প্রেসার কুকারে আলাদা আলাদা লাইনা ম্যাটেরিয়াল থাকে। Instant Pot ব্র্যান্ডে স্টেইনলেস স্টিল লাইনার আছে। যা ডিশওয়াসার সেফ। যেন সহজে পরিষ্কার করা যায় এজন্য অনেক কুকারে ননস্টিক প্রলোপ ব্যাবহারা করে থাকে।

সেফটি ফিচার

আপনি যে টুলসটি ব্যবহার করে রান্না করতে যাচ্ছেন সেটি যেন অবশ্যই সেফ হয়। জলীয় বাস্প নির্গত হওয়ার জন্য পর্যাপ্ত যায়গা, বিদ্যুৎ অপরিবাহী ম্যাটেরিয়াল সহ ইলেকট্রিক প্রেসার কুকারে কিছু নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকা একান্ত জরুরী। অনেক সময় বাজে কোম্পানিগুলো বেশি মুনাফার আশায় খারাপ ম্যাটেরিয়ালস দিয়ে পন্য বাজারে নিয়ে আসে। আর কম দামের আশায় মানুষও সেখানে ভীর জমায়।

দাম

কি ভাই আপনিই তো বলেন কম দামের মাল ভালো না। হ্যাঁ, তবে খারাপ তাও বলি নি। এই সকল প্রোডাক্ট বাংলাদেশে তেমন বেশি উৎপাদন হয় না। বেশিরভাগ প্রেসার কুকারই আমদানি নির্ভর আর এই সুযোগে অনেক অসাধু ব্যবসায়ী নিজের ইচ্ছা মতো প্রাইস ট্যাগ লাগিয়ে পন্য বিক্রি করা শুরু করে। তাই ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার কেনার আগে কয়েকটি দোকানের সাথে দাম যাচাই বাচাই করে কিনুন।

ইলেকট্রিক প্রেসার কুকারে সঠিক ভাবে রান্না করার কিছু টিপস

আপনি যদি ইতিমধ্যে প্রেসার কুকারে রান্না করে থাকেন তাহলে তো কথাই নেই। তবে আপনি যদি একজন নিউ কামার হয়ে তাকেন তাহলে এতে রান্না করতে গিয়ে প্রাথিমিক ভাবে আপনেক কিছুটা সমস্যায় পড়তে হতে পারে। তবে আপনি নিচে দেওয়া টিপস গুলো অনুসরন করে এই সকল সমস্যা হতে খুব সহজেই রেহাই পেয়ে যেতে পারেন।

পর্যাপ্ত খালি জায়গা রাখুন

খাবার দিয়ে সম্পূর্ণ কুকার ভরে ফেলবেন না। অনেকে প্রথম বারে রান্না করতে গিয়ে এই কাজ করে থাকে। অর্থাৎ কিছু রান্না করতে গিয়ে একদম গাদাগাদি করে কুকারে তরকারি বা ভাত বসায়। এতে একতো আপনার খাবার সঠিক স্বাদ পাবেন না। এমনকি দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে। তাই প্রেসার কুকারে থাকা ইউজার ম্যানুয়াল দেখে রান্নার পরিমান দেওয়া সব থেকে উত্তম।

অতিরিক্ত পানি দেওয়া হতে বিরত থাকুন

প্রেসার কুকারে খুব দ্রুত সময়ে পানি গরম হয়ে যায় পাশাপাশি জলীয়বাষ্প হয়ে বেড়িয়ে যাওয়ার সুজগও কম থাকে। ফলে অতিরিক্ত পানি দিলে আপনার খাবার স্বাদ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সব থেকে ভালো হয় সবসময় ইউজার ম্যানুয়াল দেখে রান্না বসান। তবে, একটি কমন রুলস আর তা হচ্ছে কখনো কুকারের অর্ধেকের বেশি পরিমান পানি দিবেন না বা কোন লিকুইড জাতীয় কিছু রান্না করবেন না।

সময় নিয়ে রান্না করুন

সত্য কথা বলতে অনেকেই সময় বাঁচানোর জন্যই ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার ক্রয় করে থাকে। পাশাপাশি গ্যাসের সমস্যা বা গ্রামের বাড়িতে মাটির চুলায় রান্না করা বেশ ঝামেলার। ইউজার ম্যানুয়াল মেনে  যে খাবার রান্নার জন্য যে সময় দেওয়া আছে তা মেনে রান্না শেষ করুন। খাবারের স্বাদ হেরফের হয়ে যেতে পারে।

বন্ধ করতে ভুলে যাবেন না

রান্না শেষ, তো কাজ শেষ! রান্না শেষ হলে আপনার প্রেসার কুকারের সুইচ অফ করুন।

ভালো ভাবে পরিষ্কার করুন

রান্না শেষ হলে ব্যবহার শেষে আপনার কুকারটি পরিষ্কার করে উল্টো করে রাখুন। পানি থাকেল যেন শুকিয়ে যায়। তৈলাক্ত খাবার রান্না করলে গরম পানি দিয়ে ধোয়া উত্তম।

প্রিয় পাঠক, ইলেকট্রিক প্রেসার কুকার নিয়ে আজকের আয়োজন এখানেই শেষ করছি। সকল প্রকার স্বাস্থ্য, রান্না, বিউটি টিপস পেতে নিয়মিত ভিজিট করুন আপনাদের প্রিয় টিপসওয়ালী ডট কম।

আপনার জানা বিভিন্ন টিপস ট্রিকসও শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে।

সুস্থ থাকুন নিরাপদ থাকুন।

Spread the love

Leave a Reply