https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/07/cherry-tomato.jpg

টমেটো অন্যতম একটি পুষ্টিকর সবজি। নিয়মিত খাদ্য তালিকায় এর অবস্থান আপনার শরীরে ডেঙ্গু প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি, ক্যানসার ও হার্টের ঝুঁকি হ্রাসে সাহায্য করবে। বাজারে যে সব সাধারন টমেটো পাওয়া যায় সেগুলোর তুলনায় চেরি টমেটোতে কয়েকগুন বেশি ফ্ল্যাভোনয়েড এন্টিঅক্সিডেন্ট ও লাইকোপিন বিদ্যমান।

প্রিয় ভিজিটর, আজকের লেখাজুড়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো চেরি টমেটো কি, চেরি টমেটোর পুষ্টিগুন, খাওয়ার উপকারিতা, চেরি টমেটোর দাম, সহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে।

চেরি টমেটো কি?

(Cherry Tomato) চেরি টমেটো হচ্ছে এক প্রকারের উন্নত জাতের টমেটো এর সাইজ সাধারন জাতের টমেটোর চেয়ে ছোট। এটি দেখতে কিছুটা গোলাকার ও গলফ বলের মতো। সাধারণত লাল রঙের হয়ে থাকলেও কিছু কিছু চেরি টমেটো হলুদ, সবুজ ও কালো রঙরেও হয়ে থাকে।

চেরি টমেটোর পুষ্টিগুণ

একটি চেরি টমেটোর প্রায় ৯৫ শতাংশ পানি, বাকি ৫ শতাংশ শর্করা ও ফাইবার বিদ্যমান। প্রতি ১০০ গ্রাম চেরি টমেটোতে ১৮ ক্যালোরি, ৯৫ শতাংশ পানি, ০.৯ গ্রাম প্রোটিন,৩.৯ গ্রাম কার্বস, ২.৬ গ্রাম চিনি, ১.২ গ্রাম ফাইবার, ০.২ গ্রাম ফ্যাট পাওয়া যায়।

চেরি টমেটো খাওয়ার উপকারিতা

দো-আশ ও বেলে দো-আশ মাটিতে জন্মানো পুষ্টিকর চেরি টমেটোর রয়েছে অবাক করা উপকারিতা। বিশেষ করে ডায়াবেটিস রোগীর জন্য একটি উত্তম খাবার। কথা না বাড়িয়ে চলুন চেরি টমেটোর উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক-

১. স্ট্রোক থেকে রক্ষা

হার্ট এট্রাক ও স্ট্রোক বিশ্বজুড়ে মৃত্যুর একটি অন্যতম কারন হয়ে দাড়িয়েছে। একটি গবেষণায় দেখা যায় বয়স্ক পুরুষদের রক্তে নিম্ন স্তরের লাইকোপিন এবং বিটা ক্যারোটিন হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুকিয়ে বাড়িয়েছে। (সোর্স) চেরি টমেটোতে থাকা উপাদানগুলি আপনার রক্তনালীর অভ্যান্তরীন স্তরের প্রতিরক্ষামূলক প্রভাব প্রদর্শন করে এবং রক্ত জমাট বাঁধার ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে।

২. ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ

গবেষণায় দেখা যায় যাদের টাইপ -১ ডায়াবেটিস আছে এবং নিয়মিত উচ্চ ফাইবার যুক্ত খাবার গ্রহন করে তাদের রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কম থাকে। অন্যদিকে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের রক্তে শর্করা, লিপিড এবং ইনসুলিনের মাত্রা উন্নত করে। আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন মহিলাদের প্রতিদিন ২৫ গ্রাম ফাইবার এবং পুরুষদের প্রতিদিন ৩৮ গ্রাম ফাইবার গ্রহন করার পরামর্শ দেয়। চেরি টমেটোতে উচ্চ মাত্রার ফাইবার রয়েছে।

৩. প্রটেস্ট ক্যানসার থেকে রক্ষা

ক্যানসার হচ্ছে অস্বাভাবিক কোষগুলির অনিয়ন্ত্রিত বৃদ্ধি যা তাদের স্বাভাবিক গণ্ডি ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়ে এবং শরীরের অন্যান্য অংশগুলোতে আক্রমন করে। গবেষণায় দেখা দেখা যায় টমেটোতে থাকা উপাদানগুলো প্রটেস্ট, ফুসফুস, এবং পেটের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি থেকে রক্ষা করতে পারে।

৪. ব্লড প্রেসার কমাতে সাহায্য করে

কম সোডিয়াম গ্রহন স্বাস্থ্যকর রক্তচাপ বজায় রাখতে সাহায্য করে। তবে ধমনীতে এর প্রশস্ত প্রভাবের কারনে পটাসিয়াম গ্রহন বাড়ানো ঠিক ততোটা গুরুত্বপূর্ণ। এটি ব্লাড প্রেসার কমাতে সাহায্য করে।

৫. চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি

চেরি টমেটো লাইকোপিন, লুটিন এবইং বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ একটি সবজি। এই উপাদানগুলি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যা চোখের হালকা অনুপ্রেরিত ক্ষতি ছানি ছত্রাকের বিকাশ এবং বয়সের সাথে সম্পর্কিত ম্যাকুলার অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে কাজ করে ও চোখকে সুরক্ষিত করে।

৬. হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি

চেরি টমেটোতে রয়েছে লাইকোপিন যা হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষ করে অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকিতে থাকা মহিলাদের জন্য বিশেষ উপকারি। একটি সমীক্ষায় দেখা যায় যে যে সকল মহিলারা নিয়মিত চেরি টমেটো খায় তাদের হাড়ের ঘনত্ব হ্রাসের হার কম।

চেরি টমেটো খাওয়ার ঝুঁকি

সম্মানিত ভিজিটর বাংলাদেশের সুপার শপগুলোতে যে সকল চেরি টমেটো কিনতে পাওয়া যায় তাদের বেশিরভাগই বিদেশ হতে আমদানি করা আথবা অনেক দিন যাবত সংরক্ষণ করা। পাশাপাশি এই সবজি চাষ করার সময় রোগ ও পোকামাকড় প্রতিরোধের জন্য নানা কীটনাশক ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাই খাওয়ার আগে ভালো করে ধুয়ে নিন। অন্যথায় এটি আপনার জন্য উপকারের বদলে অপকারিতা বয়ে আনতে পারে।

চেরি টমেটোর দাম

বাংলাদেশের বাজারে এক কেজি চেরি টমেটোর দাম ৮০০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা। বাংলাদেশের বড় বড় সুপারশপগুলোতে চেরি টমেটোর দেখা মিললেও খোলা বাজারে এই সবজি পাওয়া যায়না বললেই চলে।

চেরি টমেটো কোথায় কিনতে পাওয়া যায়

বাংলাদেশে এখনো প্রান্তিক পর্যায়ে চেরি টমেটো চাষ করা শুরু হয় নি। তবে অনেক কৃষি উদ্যোক্তা নিজস্ব পরিসারে ও বাণিজ্যিক ভাবে এর চাষাবাদ শুরু করেছেন। বাংলাদেশের সুপার শপগুলোতে ও অনলাইন শপে চেরি টমেটো কিনতে পাওয়া যায়।

চেরি টমেটো খাওয়ার নিয়ম

এই সবজি খাওয়ার আলাদা কোন নিয়ম নেই। আপনি চাইলে সালাদ কিংবা খালি অথবা রান্না করে খেতে পারেন। অনেকে সবজির মধ্যে দিয়ে রান্না করে খায়। আবার পাকা টমেটো খালিও খেতে পছন্দ করে।

সর্বশেষ

সম্মানিত ভিজিটর আপনাদের জন্য আমাদের আজকের আয়োজন এখানে শেষ করছি। আমাদের লেখা নিয়ে আপনাদের কোন মতামত কিংবা অভিযোগ আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। যুক্ত হতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজে। লেখাটি ভাল লাগলে ছড়িয়ে দিন আপনার প্রিয়জনদের মাঝে।