Electric Kettle

ব্যবহার সহজ ও সময় সময় স্বল্পতার কারনে দিন দিন ইলেকট্রিক কেটলির জনপ্রিয়তা বেড়েই চলছে। বিশেষ করে শহর অঞ্চলের বাসা বাড়িগুলোতে ইলেকট্রিক কেটলি একদম অন্য লেভেলে চলে গেছে।

বাজারে বিভিন্ন দামের ও ব্র্যান্ডের ইলেকট্রিক কেটলি পাওয়া যায়। বাংলাদেশের বাজারের ভিশন, মিয়াকো, ওয়াল্টনসহ নানা দেশি বিদেশি ব্র্যান্ডের ইলেকট্রিক কেটলির বেশ চাহিদা রয়েছে।

সম্মানিত ভিজিটর, আজকের লেখাজুড়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো বাংলাদেশের বাজারে বিভিন্ন জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের ইলেকট্রিক কেটলির দাম, ইলেকট্রিক কেটলি ব্যবহারের নিয়ম, সাবধানতা, পরিষ্কারের নিয়ম, এ সম্পর্কিত অন্যান্য বিষয় নিয়ে বিস্তারিত- Electric kettle price in Bangladesh.

মিয়াকো ইলেকট্রিক কেটলি

গৃহস্থলির ইলেকট্রিক পন্যে বাংলাদেশের বাজারে বেশ শক্ত অবস্থানে আছে জাপানি ব্র্যান্ড মিয়াকো। অন্যান্য ইলেক্ট্রনিক পন্যের মতো ইলেকট্রিক কেটলিরও বেশ ভাল চাহিদা রয়েছে এখানে। বাংলাদেশের বাজারে একটি মিয়াকো ইলেকট্রিক কেটলির দাম ১০০০ টাকা থেকে ৩২০০ টাকার মধ্যে।

ভিশন ইলেকট্রিক কেটলি

দিনে দিনে নতুন নতুন দেশীয় ইলেকট্রিক ব্র্যান্ড আত্মপ্রকাশ করছে। ভিশন বাংলাদেশের অন্যতম একটি পরিচিত ইলেকট্রিক ব্র্যান্ড। টিভি, ফ্রিজ, আয়রন, ওভেনের পাশাপাশি ভিশন এর ইলেকট্রিক কেটলির ভাল বাজার চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশে এক একটি ইলেকট্রিক কেটলির দাম ৭৫০ টাকা থেকে ১৩০০ টাকার মধ্যে।

ওয়াল্টন ইলেকট্রিক কেটলির দাম

দেশীয় পন্য কিনে হন ধন্য এই শ্লোগান নিয়ে বাজারে এসে ইতিমধ্যে ওয়াল্টন বেশ ভাল সুপরিচিত লাভ করেছে। পাশাপাশি দেশীয় পন্য হওয়ায় বিদেশ থেকে আমদানি করা পন্যের তুলনায় সরকারকে কম ট্যাক্স পরিশোধ করতে হয় আর এই সুবাধে অল্প দামে ক্রেতাদের জন্য পন্য সরবরাহ করতে পারছে। বাংলাদেশের পাশাপাশি ওয়াল্টন এখন দেশের বাইরেও পন্য সরবরাহ করছে। বাংলাদেশের বাজারে ১ টি ওয়াল্টন ইলেকট্রিক কেটলির দাম ৮৫০ টাকা হতে ২৩০০ টাকার মধ্যে।

ফিলিপস ইলেকট্রিক কেটলির দাম

ফিলিপস ইলেক্ট্রনিক্স এর সাথে বাংলাদেশের মানুষ বেশ আগে থেকেই পরিচিত। বাংলাদেশের বাজারে ফিলিপসের বিভিন্ন দামের ও ডিজাইনের ইলেকট্রিক কেটলি পাওয়া যায়। বাংলাদেশের বাজারে এক একটি ফিলিপস ইলেকট্রিক কেটলির দাম ২০০০ টাকা থেকে ৫০০০ টাকা।

ইলেকট্রিক কেটলি ব্যবহারের নিয়ম

ইলেকট্রিক কেটলি খুবই সময় সাশ্রয়ী তবে সঠিক নিয়মে ব্যবহার জানা না থাকলে ও সতর্কতার সাথে ব্যবহার না করলে এ থেকে দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে। চলুন এ পর্যায়ে ইলেকট্রিক কেটলি ব্যবহারের সঠিক নিয়ম জেনে নেওয়া যাক-

১. নিয়মিত পরিষ্কার করুন

পরিষ্কার-পরিছন্নতা ঈমানের অঙ্গ। কেটলি কিংবা কোন কিছু ব্যবহার করার পর ময়লা বা অপরিষ্কার অবস্থায় রেখে দেওয়ার বদঅভ্যাস আমাদের সমাজের অনেক মানুষের মধ্যেই দেখা যায়। কেটলি নিয়মিত পরিষ্কার না করার কারনে পানির ক্ষার এর আবরন পড়ে যায়। এ থেকে জীবাণুর সৃষ্টি হওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। আর এই ব্যাকটেরিয়া আমাদের শরীরে প্রবেশ করলে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। তাই ইলেকট্রিক কেটলি ব্যবহার শেষে নিয়মিত পরিষ্কার করে পানি ঝড়িয়ে শুঁকিয়ে রাখুন।

২. যতটুকু লাগে তত তুকু পানি ফুটান

অপচয় কারী শয়তানের বন্ধু। আমাদের আশেপাশে অপরিষ্কার লোকের মতো অপচয়কারী লোকও কিন্তু কম নেই। পানির অপর নাম জীবন। মরুভুমি অঞ্চলের বাসিন্দারা জানে একফোটা পানির দাম কতো। দিন দিন বিশুদ্ধ পানির উৎস কমে যাচ্ছে। আপনার আমার অপচয় এর অন্যতম কারন। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য ও পাপ থেকে বাঁচতে অপচয় থেকে বিরত থাকুন। যতটুকু প্রয়োজন ততোটুকু পানি ফুটান।

৩. ব্যবহার শেষে পানি শূন্য রাখুন

আমারা অনেক সময় কেটলিতে পানি ফুটিয়ে অবশিষ্ট পানি এর মধ্যেই রেখে দেই। কেউ হয়তো পরবর্তীতে এই পানি আবার ফুটিয়ে বা গরম করে ব্যবহার করে। কেটলিতে থাকা পানি বেশি দিন থাকলে এতে রোগজীবাণু হওয়ার সম্ভাবনা অনেক। তাই ব্যবহার শেষে কেটলিতে পানি রাখা থেকে বিতর থাকুন। এছাড়া এর মধ্যে জং ধরারও সম্ভাবনা রয়েছে।

৪. খালি কেটলির সুইচ অফ রাখুন

খালি কেটলির সুইচ অন করা থেকে বিরত থাকুন। অনেকেই না দেখে বা বেখালে পানি না থাকা অবস্থায় ইলেকট্রিক কেটলির সুইচ অন করে দেয়। এতে দুর্ঘটনা ঘটার চান্স থাকে। পাশাপাশি সেন্সর নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই খালি কেটলির সুইচ অন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

ইলেকট্রিক কেটলি পরিষ্কার করার নিয়ম

আমাদের অনেকেরই সঠিক নিয়মে ইলেকট্রিক কেটলি পরিষ্কার করার নিয়ম জানা নেই। বিশেষ করে নতুনরা এ নিয়ে কিছুটা বিকাপেও পড়ে যায়। চলুন এ পর্যায়ে ইলেকট্রিক কেটলি পরিষ্কার করার নিয়ম জেনে নেওয়া যাক-

প্রথমেই আপনার ইলেকট্রিক কেটলির বৈদ্যুতিক সুইচ অফ করে প্লাগটি খুলে নিন। এবারে উপরের দিকে থাকা ঢাকনা খুলে মাজনিতে ভিমবার কিংবা লিকুইড নিয়ে ভিতরের দিকে চারপাশ মেজে মেজে পরিষ্কার করুন। মাজনি সামান্য পানি দিয়ে ভিজিয়ে নিন। বাহিরের দিকে ময়লা হলে একইভাবে পরিষ্কার করতে পারেন। এবারে ভিতরের দিকে পানি নিয়া ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। এবার ঢাকনা খোলা রেখে কেটলির মুখ নিচের দিকে দিয়ে রেখে দিন। পানি ঝড়ে শুঁকিয়ে গেলে ব্যবহার করুন।

জনপ্রিয় ব্র্যান্ড

বাংলাদেশের জনপ্রিয় কয়েকটি ইলেকট্রিক কেটলির ব্র্যান্ড হচ্ছে- ওয়াল্টন, ভিশন, মিয়াকো, কিয়াম, ফিলিপস, প্যানাসনিক, শার্প।

সম্মানিত ভিজিটর আশা করছি, বাংলাদেশের বাজারে থাকা ইলেকট্রিক কেটলির দাম, ইলেকট্রিক কেটলি পরিষ্কার ও ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা পেয়ে গেছেন। আমাদের লেখা নিয়ে আপনার কোন মতামত কিংবা পরামর্শ থাকলে শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে।

আরও পড়ুনঃ কফির অপকারিতা ও উপকারিতা

Leave a Reply