https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/09/happy-birthday-wish.jpg

জন্মদিন মানেই মানুষের জীবনে বিশেষ একটি দিন। বিশেষ করে বন্ধু-বান্ধবীকে, পিতা-পুত্র, মা, ছোট কিংবা বড় ভাই-বোন, অফিসের বস-সহকর্মী কিংবা পরিচিত কারো জন্মদিনে সুন্দর একটি এসএমএস/বার্তা কিংবা ফেসবুকে শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস বা তাকে নিয়ে একটি পোস্ট তার জন্মদিনের আনন্দকে কয়েকগুন বাড়িয়ে দিতে পারে।

তাড়াহুড়োর কারনে কি লিখে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাবো আমরা অনেক সময় সেটা ভুলে যাই। আসলে কাউকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানোর জন্য শব্দ চয়ন, বানান ও কথার মাধুর্যও বিশেষ গুরুত্বসহকারে খেয়াল করা উচিত।

প্রিয় ভিজিটর, আজকে আপনাদের জন্য থাকছে টিপসওয়ালীর পক্ষ থেকে বিশেষ আয়োজন। শেয়ার করতে যাচ্ছি ববন্ধু-বান্ধবী, মা-বাবা, কন্যা-পুত্র, শিক্ষক-শিক্ষিকা, ছোট/বড় ভাই-বোন, চাচা-মামা, খালা-খালু, বস কিংবা সহকর্মীদের জন্য ৪৫ টি জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস বা বার্তা আসা করছি এই বার্থডে উইস গুলো আপনাদের মন ছুঁয়ে যাবে-

Table of Contents

  1. বাবাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা
  2. মায়ের জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা
  3. শিক্ষকের জন্মদিনের শুভেচ্ছা
  4. ভাইয়ের জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস
  5. বন্ধু কিংবা বান্ধবীকে বার্থডে স্ট্যাটাস
  6. প্রেমিক প্রেমিকাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা
  7. পুত্রের জন্মদিনের শুভেচ্ছা
  8. মামা-মামি, চাচা-চাচি, খালা-খালু, ফুফু-ফুপার জন্মদিনের শুভেচ্ছা
  9. অফিসের বসের বার্থডে স্ট্যাটাস
  10. সহকর্মী বা কলিগের জন্মদিনের শুভেচ্ছা

বাবাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা

নিজে বাটন মোবাইল ব্যবহার করলেও ছেলে কিংবা মেয়ের জন্য স্মার্টফোন, নিজে একই জামা পড়ে অফিস করলেও সন্তানের জন্য নতুন জামা, নিজে পায়ে হেটে ছেলে-মেয়েকে রিকশায় কিংবা গাড়ি ভাড়ার ব্যবস্থ্যা করা মানুষটির নাম বাবা। দুনিয়ায় বাবার মতো দ্বিতীয় কাউকে পাবেন না যে আপনার জন্য কঠিন দায়িত্ব নিতে রাজি হবে না। বাবারা সারাজিবন সন্তান আর সংসারের জন্য পরিশ্রম করে নিজের সব আরাম আয়েসের কোথা ভুলে যায়। বাবার জন্মদিনে একটি ছোট লাইন, কিংবা ছোট একটা উপহার দিয়ে তার ভেতরটা খুশিতে ভরিয়ে তুলতে পারেন।

তোমাকে/আপনাকে আব্বা/বাবা/পিতা হিসেবে পাওয়ার চেয়ে বড় কোন গিফট আমি আর পাবো না। জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও সালাম নিও বাবা। শুভ জন্মদিন আব্বু।

আব্বু তোমার জন্মদিনে হাজার সালাম, শুভেচ্ছা আর ভালোবাসা রইলো।

তপ্ত রোদ কিংবা প্রলয়ঙ্করী টর্নেডোতে আশ্রয় দিয়ে আগলে রাখা মানুষটি জন্মদিনের শুভেচ্ছা। প্রিয় বাবা।

তোমাকে বাবা ডাকতে পারাটা আমার জীবনের সবচেয়ে সেরা পাওয়া।

যেই মানুষটি আমাকে শিখিয়েছে পুরোপুরি বাঁচতে, উচ্চস্বরে হাসতে, আর প্রচুর পরিমানে ভালবাসতে। প্রিয় বাবা।

মায়ের জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা

মায়ের একদার দুধের দাম কাটিয়া গায়ের চাম পাপস বানাইলেও ঋণ শোধ হবে না, এমন দরদি ভবে কেউ হবে না, আমার মা। মায়েদের সেক্রিফাইস কেবল মায়েরাই করতে পারে। টানা দশ মাস গর্ভে ধারন করে যিনি আমাদের পৃথিবীতে আসার সুযোগ করে দিয়েছেন তিনি আমাদের মা। মায়ের ভালোবাসা আদর, স্নেহ পরিমাপ কারার মত যন্ত্র দুনিয়ায় নাই। যেই মা আপনার জন্য এত কিছু করলেন, নিজের রক্ত পর্যন্ত পানি করে ফেললেন তার জন্মদিনে একটি ছোট এসএমএস কিংবা হাতে লেখা চিরকুট আপনার মমতাময়ী মায়ের মুখে হাসি আর একবুক বাচার স্বপন জাগিয়ে তুলতে পারে।

তুমি কেবল আমার মা নয়, আমার দেখা সবচেয়ে সেরা ও সুন্দর মহিলা।

আমার দেখা সুপার হিরো। আপনি/তুমি সবচেয়ে শক্তিশালী, সাহসী, বুদ্ধিমান মহিলা। শুভ জন্মদিন আম্মু/মা/মামনি/আম্মিজান/আম্মাজান।

সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ তোমার কোলে মাথা রাখার সুযোগ দিয়েছে। লাভ ইউ মা/আম্মু/আম্মাজান।

আম্মু শুভ জন্মদিন। অনুগ্রহ, ভালোবাসা আর কোমলতায় পূর্ণ সবচেয়ে সুন্দর একজন মানুষ।

এমন একটি দিনও নাই যেদিন একবার হলেও মনে করি না আমাদের ঘরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী। আমার অসাধারণ আম্মু জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিও।

হে খোদা ধন্যবাদ আমার জন্য এই সুন্দর মনের মানুষটাকে মা হিসেবে নির্ধারণ করার জন্য। আরও কয়কে শত বছর বেঁচে থাকো।

শিক্ষকের জন্মদিনের শুভেচ্ছা

মা-বাবার পড়ে শিক্ষক আমাদের গুরুজন। জীবনে চলার পথে কিভাবে সাজাতে হবে পরিবারের পর শিক্ষকের নিকট থেকে আমার এই শিক্ষা পেয়ে থাকি। সময়ের সাথে সাথে শিক্ষকের কথা অনেকেই ভুলে যাই বা তারাও আমাদের কথা ভুলে যায়। তবে অনেকেরই পছন্দের একজন শিক্ষকের সাথে ভালো সম্পর্ক ও যোগাযোগ বছরের পর বছর থেকেই যায়। মহান শিক্ষকের বা শিক্ষিকার জন্মদিনে একটি ছোট খামে কিংবা মোবাইলে এসএমএস করে তাদের জন্মদিনে উইস করতে পারেন।

মা-বাবার পরে আপনি সেই ব্যাক্তি যিনি শিখিয়েছেন কিভাবে সকল বাধা-বিপত্তিকে জয় করে সামনে আগাতে হয়।

আপনার উপদেশ আমার জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে। সারাজীবন আমার জন্য আপনার দোয়া আর আমার পক্ষ থেকে সুস্থতা কামন করছি। সালাম নিবেন।

আপনার মতো শিক্ষক প্রত্যকের জীবনে একবার হলেও আসা উচিত।

আপনার নির্দেশনা আর স্নেহ আমার পথ চলার পাথেয়। অনেক অনেক সুখে থাকবেন। দোয়া করবেন। শুভ জন্মদিন স্যার।

ভাইয়ের জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

ভাই বড় ধন, রক্তের বাধন। যদিও দিনে দিনে সমাজে ভাইয়ে ভাইয়ে সু-সম্পর্ক হাড়িয়ে যেতে বসেছে। যা আমাদের ভবিষ্যতের জন্য অনেক বড় একটি অশুভ লক্ষন। মায়ের পেটের ভাইয়ের চেয়ে পর মানুষ বেশি আপন হয়ে গেলেই সমস্যা। হ্যা তবে টুকিটাকি একটু ঝামেলা হতেই পারে। আর এই রাগ ভাঙানোর একটি সুবর্ণ টাইম হচ্ছে ভাইয়ের জন্মদিনে একটি শুভেচ্ছা বার্তা কিংবা বিবাহ বার্ষিকীতে বা অন্যকোন বিশেষ দিনে শুভেচ্ছা জানানো। বড়-ছোট ভাইয়ের জন্মদিনের কয়েক জনপ্রিয় শুভেচ্ছা বার্তা-

মাঝে মধ্যে ভাই হওয়া সুপার হিরো হওয়ার চেয়ে ভালো।

তনয়ের মত উজ্জ্বল হও। তটিনীর মত চঞ্চল হও। অম্বর এর মত উদার হও। আর ঢেউয়ের মত হও উচ্ছল। শুভ জন্মদিন ভাই।

বাবার পড়ে আশা ও ভরসার স্থান, শুভ জন্মদিন ভাইইয়া।

আজ আমার সবচেয়ে খুশির দিন, কারন আজকের এই দিনে উপরওয়ালা আমার জন্য একটি ভাই পাঠিয়ে ছিল।

বন্ধু কিংবা বান্ধবীকে বার্থডে স্ট্যাটাস

বন্ধু-বান্ধবী মানুষের জীবনে একটি রহমত যদি হয় সঠিক বন্ধু। তবে সঠিক বন্ধু নির্বাচন করতে পারাটাও অনেক কঠিন কাজ। আর এর চেয়েও বড় কঠিন হচ্ছে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা। যদিও বয়সের সাথে সাথে আমাদের চলাফেরা চিন্তা ভাবনা পরিবর্তন হতে শুরু করে। বন্ধু বান্ধবীর জন্মদিনের কয়েকটি শুভেচ্ছা বার্তা-

তোর/তোমার মতো একটা বান্ধবী সবার জীবনেই আসা উচিত। জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিও/নিস প্রিয়। (চাইলে নাম ম্যানসন করতে পারেন)।

একজন ভাই, একজন দেহরক্ষী, একজন ভালো বন্ধু। জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিস।

সময়ের সাথে সব কিছু পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। দেখি না কয়েক যুগ। দেখা করিস, জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিস।

জানিনা কতো সৌভাগ্যবান হলে তোর মতো একজন বন্ধু পাওয়া যায়।

শুভ জন্মদিন হাসিমুখ।

প্রেমিক প্রেমিকাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা

প্রেম তো কত মানুষই করে, টিকুক বা না টিকুক মাঝখান দিয়া লাভ হয় রেস্টুরেন্ট মালিকের। যাহোক প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার জন্মদিনটি মানুষ একটু বেশি খেয়ালে রাখে। টাইমমতো উইস না করলে ব্রেকআপ হওয়ার নিউজও কিন্তু শোনা যায় মাঝে মাঝে।সঠিক সময় সবার আগে একটি ছোট এসএমএস, কিংবা ফেসবুক ও ইন্সটাগ্রাম ও অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে তাকে নিয়ে কয়েকটা লাইন লিখতে পারেন। শুধু প্রেমিক নয় প্রেমিকারও কিন্তু নিজ দায়িত্বে প্রেমিকের জন্মদিনে ছোট করে কিংবা বড় করে একটি এসএমএস কিংবা শুভেচ্ছা বার্তা জানানো-

শুভ জন্মদিন প্রেয়সী।

মেয়ে তুমি ভালোবাসা নাকি বিরহ, কাছে থাকলে বাঁচি। দূরে গেলে মরি।

তোমার ওই মিষ্টি হাঁসিতে আমি প্রিতিদিন গভীর থেকে গভীরে হারিয়ে যাচ্ছি।

শুভ জন্মদিন প্রিয়তমা/প্রিয়।

আজ এইদিনে প্রকৃতি যেন হেলে দুলে হয়েছে রঙিন, আজ আমার প্রিয়তমার জন্মদিন।

আমি সুখ খুঁজতে বেড় হয়ে তোমাকে পেয়ে খোঁজা বন্ধ করে দিয়েছি।

পুত্রের জন্মদিনের শুভেচ্ছা

আল্লাহর ইচ্ছায় মা-বাবার মাধ্যমে মানুষের এই দুনিয়ায় আসা। কারো সুখে কিংবা দুখে সবেচেয়ে বেশি যে মানুষ গুলো সুখি কিংবা দুখী হয় তারা হচ্ছেন মা-বাবা। জামানার পরিবর্তনে আজকালকার মা-বাবারাও বেশ সচেতন। সন্তানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে কিংবা তাদের জন্মদিনে কিছু একটা আয়োজন করতে তারাও মোটামুটি ভুলে যায় না। তবে সন্তান বিয়ের পরে কিংবা একটু বড় হয়ে মা-বাবাকে ভুলে যাওয়ার রেকর্ড একটু বেশি। পুত্র ও কন্যা সন্তানের জন্মদিনের কয়েকটি শুভেচ্ছা বার্তা ও স্ট্যাটাস-

প্রিয় সন্তান/পুত্র/কন্যা পৃথিবীর সব কিছুই সীমাবদ্ধ, তবে তোমার প্রতি আমার ভালোবাসা সীমাহীন।

আরও বেশি জ্ঞানী, পরিশ্রমী,উদ্যমী, সাহসী হও। সত্য তোমার চলার সাথি হোক।

আমি তোমাকে আমার সমস্ত হৃদয় দিয়ে ভালোবাসি, অনেক অনেক বড় হও। বাবা/মা আমার।

বিশাল সুন্দর এই দুনিয়ায়, সবচেয়ে সুন্দর ও সফল মানুষটি তুমি হও।

তারার মতো ঝলমলে হয়ে উঠুক তোমার জীবন। সুন্দর মনের মানুষ হও।

আমার রাজকন্যা/রাজপুত্র হ্যাপি বার্থডে।

মামা-মামি, চাচা-চাচি, খালা-খালু, ফুফু-ফুপার জন্মদিনের শুভেচ্ছা

আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে আসা যাওয়া তাদের সাথে সু-সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ব্যাপারে মানুষ আজকাল খুবই উদাসিন। অথচ ইসলাম ধর্মে খুব সতর্কতার সাথে বলা হয়েছে। জাহান্নামে য়াওয়ার অন্যতম কারন হচ্ছে আত্মীয় স্বজনের সাথে সু-সম্পর্ক না রাখা। ও আমাদের বাড়িতে আসে আমি যাব কেন। ও অমুকে দাওয়াত দিল আমাকে দিল না কেন। এই রকম নানা অযুহাতে আমরা দিন দিন পাপে সাগরে ডুবে যাচ্ছি। যাহোক আমাদের কাছের আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে মামা-মামি, চাচা-চাচি, খালা-খালু, ফুফু-ফুপা ও তাদের ছেলে মেয়ে অন্যতম। তাদের জন্মদিন যদি আপনার স্মরণে থাকে ছোট একটি এসএমএস এর মাধ্যমে জানাতে পারেন। কিংবা ফোন করেও উইস করতে পারেন।

সময়কে হাড় মানিয়ে আমাদের ফ্যামিলির বন্ধন জিতে যাবে।

ফ্যামিলি মানেই দারুন কিছু।

কে বলছে এই জামানায় আত্মীয়-স্বজনের সম্পর্ক থাকে না। এই যে আমাদের দেখ।

তোমাদের আদর ছাড়া আমার জীবনটা অপূর্ণ থেকে যেত।

অফিসের বসের বার্থডে স্ট্যাটাস

অফিসের বসের সুনজর কাড়তে মানুষ কতো না চেষ্টা করে। আসলে এই চিন্তা ভাবনা থেকে নয়। আপনার অফিসের বস কিংবা মালিকের জন্মদিনে ছোট একটি এসএমএস কিংব ফেসবুকে তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা জানাতে পারেন। বসের জন্মদিনের জন্য চমৎকার কয়েতকি শুভেচ্ছা বার্তা, স্ট্যাটাস ও এসএমএস-

অফিসের বস নয় আদর্শ হিসেবে জানি। সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন।

কর্মজীবনে প্রতিদিন আমি প্রতিদিনই আপনার কাছ থেকে শিখছি, কখনো কাজ আবার কখনো শৃঙ্খলা। জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিবেন।

আজকের এই বিশেষ দিনে আপনার সর্বাঙ্গীণ সুস্থতা ও সফলতা কামনা করছি।

আসছে দিনগুলোতে আরও বেশি সফলতা লাভ করবেন। আপনার ভবিষ্যৎ জীবনের সার্বিক কল্যান কামনা করছি।

জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও সালাম নিবেন।

সহকর্মী বা কলিগের জন্মদিনের শুভেচ্ছা

জব কিংবা কোন প্রজেক্টে কাজ করতে গিয়ে অনেক সহকর্মী খুবই কাছের মানুষে পরিনত হয়ে যায়। কাজের মধ্যে আপনি আপনার সহকর্মীকে তার জীবনের বিশেষ এই দিনটাকে আরও একটু বেশি রাঙিয়ে তুলতে পারেন। এসএমএস বা ফেসবুকে পোস্ট করার পাশাপাশি একটা বই, কিংবা গিফট কার্ডও উপহার হিসেবে দেওয়া যেতে পারে। এখানে সহকর্মী বা কলিগের জন্মদিনের কয়েকটি চমৎকার শুভেচ্ছা বার্তা দেওয়া হল-

হ্যাপি বার্থডে সুন্দর মনের মানুষ, ভালোবাসা নিও/নিবেন।

জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত আরও বেশি সুন্দর হোক, সফলতায় পূর্ণ হয়ে উঠুক আপনার/তোমার ভবিষ্যৎ জীবন।

শুভ জন্মদিন সহকর্মী। আপনার পেশাদার ও ব্যাক্তিগত জীবনের সার্বিক সফলতা কামনা করছি।

সর্বশেষ

সম্মানিত ভিজিটর, আজকের মত এখানেই শেষ করছি। আপনার পছন্দের কোন উক্তি থাকলে শেয়ার করুন আমাদের সাথে। কিংবা আমাদের লেখার মধ্যে কোন জন্মদিনের উক্তি/স্ট্যাটাস/বার্তাটি বেশি ভালো লেগেছে জানাতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজে।

জন্মদিনে কি উপহার বা গিফট দেওয়া যায়?

জন্মদিনের সেরা কয়েকটি উপহার বা গিফট হচ্ছে- বই, ফুলের তোরা/ফুলদানি, ফটো ফ্রেম, আকা ছবি, জামা কাপড়, ঘড়ি, নিজের হাতে বানানো কেক, ডাইরি, নেকলেস, ট্রাভেল ব্যাগ, পারফিউম।

গার্লফ্রেন্ডের জন্মদিনে কি গিফট দেওয়া যায়?

গার্লফ্রেন্ডের জন্মদিনে চকলেট, মুভি টিকেট, ফুল, ঘড়ি, ব্যাগ/পার্স, নেকলেস বা অন্য জুয়েলারি, ড্রেস ইত্যাদি উপহার দেওয়া যায়।