https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/12/Dark-lips-tips.jpg

জীবনযাপনের ধরনসহ বিভিন্ন কারনে কিছু কিছু মানুষের ঠোঁট সময়ের সাথে সাথে কালো হয়ে যায়। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সঠিক চিকিৎসা ও নিয়ম অনুসরনের মাধ্যমে ঠোঁট কালো হওয়া থেকে মুক্তি মেলে এবং কালো ঠোঁট ফর্সা করা যায়।

সম্মানিত ভিজিটর, আসসালামুওয়ালাইকুম আশা করছি সবাই ভালো এবং সুস্থ আছেন। প্রিয় ভিজিটর, আজকের লেখাজুড়ে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে যাচ্ছি ঠোঁট কালো হওয়ার কারন ও কালো ঠোঁট সাদা বা ফর্সা করার সঠিক উপায় ও টিপস সম্পর্কে। এনং যে সকল কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে।

Table of Contents

ঠোঁট কালো হওয়ার কারন কি?

সাধারণত হাইপারপিগমেন্টেশনের কারনে ঠোঁট কালো হয়ে যেতে পারে। এটি মেলানিনের আধিক্য দ্বারা সৃষ্ট একটি নিরীহ অবস্থা। আর ঠোঁটের হাইপারপিগমেন্টেশন এর কারন হতে পারে- সূর্যের অত্যাধিক এক্সপোজার, হাইড্রেশনের অভাব, সিগারেট সেবন বা ধূমপান, টুথপেস্ট এবং লিপিস্টিকে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া, ঠোঁট চোষা, অতিরিক্ত কফি পান করা। পাশাপাশি কেমোথেরাপি, রক্তস্বল্পতা, ভিটামিনের অভাব, এবং অত্যাধিক ফ্লোরাইড ব্যবহারও ঠোঁট কালো হওয়ার অন্যতম কারন হতে পারে।

কালো ঠোঁট ফর্সা করার উপায়

ঠোঁটের কালচে ভাব দূর করতে নিচের পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করুন।

১) মধুর স্ক্রাব ব্যবহার করুন

ঠোঁট বেশি শুষ্ক থাকলে নিস্তেজ দেখাতে পারে। ১ চা চামচ মধু এবং ১ চা চামচ চিনি নিয়ে এক সাথে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এবার এই মিশ্রণটি আলতো করে আঙুলের সাহায্যে ঠোঁটের উপর ঘষুন। কিছু সময় পরে সামান্য গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে একবার এভাবে করুন। মনে রাখবেন অতিরিক্ত এক্সফোলিয়েটিং আপনার ঠোঁটের জন্য ক্ষতির কারন হয়ে দাড়াতে পারে। স্কিনের স্ক্রাব করার নিয়ম পড়ুন

২) বাদামের তেলের ম্যাসাজ

ঠোঁটের কালো দাগ দূর করতে বাদামের তেল বেশ কার্যকরী। আঙুলে বাদামের তেল নিয়ে আলতো করে ঠোঁটে ম্যাসাজ করুন। এটি আপনার ঠোঁটে রক্ত সঞ্চলন বাড়াতে সাহায্য করবে। এবং ঠোঁটের রক্তনালীগুলি রঙ দিতে সাহায্য করে। তবে আপনি চাইলে নারিকেল তেলও ব্যবাহার করতে পারেন। দিনে ৩-৪ বার এভাবে মালিশ করুন। ওষুধের দোকানে কিংবা অনলাইনে বাদামের তেল কিনতে পাওয়া যায়।

৩) লিপবাম ব্যবহার করুন

নিয়মিত লিপবাম ব্যবহার আপনার ঠোঁটের কালচেভাব দূর করতে সাহায্য করতে পারে। বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের লিপ বাম কিনতে পাওয়া যায়। এদের মধ্যে মেরির, স্কয়ার কোম্পানির লিপবাম ব্যবহার করতে পারেন। তবে আপনি চাইলে বাসায় বসেও লিপবাম বানিয়ে নিতে পারেন। বাসায় বসে লিপবাম বানানোর উপায় পড়ুন এখানে।

৪) পর্যাপ্ত পানি পান করুন

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য পানি পান আমাদের শরীরের স্কিনের মতো ঠোঁটের স্কিনের উপরও প্রভাব ফেলে। নিয়মিত পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করুন। মাঝে মাঝে পানির সাথে লেবু মিশিয়ে পান করতে পারেন।

৫) সাবধানে লেবু ব্যবহার

স্কিনের যত্নে লেবুর ব্যবহার বেশ পুরাতন। লেবুতে সাইট্রিক অ্যাসিড থাকে যা ঠোঁটের ত্বক এক্সফোলিয়েট করার ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলতে পারে। এবং এই এসিড মৃত কোষ দূর করতেও সাহায্য করে। এক টুকরো লেবু কেটে ঠোঁটের উপর এক মিনিতের বেশি সময় চেপে ধরে রাখুন এবং সামান্য গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ব্যবহারের আগে খেয়াল করে দেখুন আপনার ঠোঁট কাটা বা ফাটা কিনা এতে জ্বালাপোড়া করতে পারে। সপ্তাহে ডি কি একদিন এভাবে করুন।

৬) ব্রাশের উল্টোপাশ দিয়ে মাজন

আপনি যদি খেয়াল করেন তবে দেখতে পাবেন আপনি যে ব্রাশ দিয়ে দাঁত ব্রাশ করেন তার উল্টোপাশে ছোট ছোট ডত এর মতো আছে। এটি মূলত ঠোঁটের জন্য। সকালে ব্রাশ করার সময় ব্রাশের উল্টোপাশ দিয়ে ঠোঁটের উপর সামান্য ঘষা দিন আপনি চাইলে ব্রাশের সাহায্যেও আলতো করে এভাবে করতে পারেন।

যেসব কাজগুল থেকে বিরত থাকতে হবে

ঠোঁট ফর্সা করতে ও কালচে ভাব দূর করতে যে সকল কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে তা নিচে দেওয়া হলো-

১) চা-কফি এড়িয়ে চলুন

চা-কফি ঠোঁটের রঙ নষ্ট করে বেশ পটু। যারা নিয়মিত কয়েকবার চা-কফি পান করে তাদের বেশিরভাগেরই ঠোঁট কালচে হয়ে যায়। আপনার যদি এরকম অভ্যাস থাকে তবে আজ থেকেই পরিহার করার চেষ্টা করুন।

২) ধুমপান ত্যাগ

ধুমপান কিংবা নেশাজাত দ্রব আর্থিক ও সামাজিক ভাবে ক্ষতি করার পাশাপাশি আমাদের দেহের ভিতর ও বাহির উভয় দিক থেকে ক্ষতি করে। যারা ধুমপান করে তাদের ঠোঁট কালো হবেই। তাই আপনি যদি সিগারেট সেবন করেন আবার ঠোঁট ফর্সা করার দিবা স্বপ্ন দেখেনে তাহলে তা কল্পনাতেই থেকে যাবে। ধূমপান ত্যাগের কার্যকরী টিপস

৩) ঠোঁট কামড়ানো বা চোষা বন্ধ করুন

আমাদের অনেকের মধ্যে ঠোঁট কামড়ানো এবং জিব্বা দিয়ে ঘষার বদভ্যাস আছে। বার বার এমন করার কারনে আপনার ঠোঁট কালচে হয়ে যেতে পারে।

৪) প্রচণ্ড সূর্যের আলোতে থাকা

দিনের সূর্যের আলো আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজন। তবে সারা দিন রোদের মধ্যে থাকলে আপনার শরীরের স্কিনের পাশাপাশি ঠোঁটের রঙ ও কালো হয়ে যায়। তাই যত সম্ভব ছাতা নিয়ে বের হোন।

সর্বশেষ

কোন কিছু থেকে প্রতিকার পেতে চাইলে সেটি হওয়ার কারন জানতে হবে ও সেগুলো করা বন্ধ করতে হবে। ঠোঁট ফর্সা করার টিপসগুলো অনুসরন করার পাশাপাশি যে সকল কারনে ঠোঁট কালো হয়ে যথাসম্ভব এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। আশা করি ভালো ফলাফল পাবেন।

প্রিয় পাঠক, বাংলা ভাষায় টিপস ট্রিকস পড়তে নিয়মিত ভিজিট করুন আপনাদের প্রিয় টিপসওয়ালী ডট কম। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন।