https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/12/marriage-anniversary-wish.jpg

বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস: ১ম, ২য়, ৩য় ৪র্থ, ৫ম কিংবা ১০ম বিবাহ বার্ষিকী বলে কিছু নেই। জীবনসঙ্গী বা সঙ্গিনীকে নিজের করে পাওয়ার দিনটি চির সবুজ, চির রঙিন ও স্মরণীয়। আপনার জন্য বিধাতার নির্ধারিত মানুষটিই কেবল আপনার জীবন সঙ্গিনী হয়েছে বা হবে। তাই বলা যায় এটা এক প্রকার সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত উপহার।

বর্তমান সময়ে সামাজিক কোলাহ ও বিবাহ সম্পর্কিত জটিলতা দিন দিন বেড়েই চলছে। যা আমাদের জন্য ও আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য খুবই খারাপ সংকেত। প্রিয় ভিজিটর, সাংসারিক জীবনে টুকিটাকি নানা ভুল বোঝাবুজি, মন-মালিন্য হবেই। তবে বিশেষ দিনগুলো উদযাপনের মাধ্যমে আমরা আমাদের বৈবাহিক বা দাম্পত্য জীবনের নানা কোলাহ থেকে সহজেই মুক্তি পেতে পারি। জন্মদিন কিংবা বিবাহ বার্ষিকী ও অন্যান্য বিশেষ দিনগুলোতে স্বামী স্ত্রীকে কিংবা স্ত্রী স্বামীকে সামান্য গিফট, ছোট ছোট কিছু কাজ করে সাংসারিক জীবনকে করে তুলতে পারে আরও বেশি অর্থপূর্ণ ও সুন্দর।

সম্মানিত ভিজিটর, আজকের লেখা জুড়ে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে যাচ্ছি প্রিয় মানুষটির জন্য চমৎকার কিছু বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা, ফেসবুক স্ট্যাটাস, এসএমএস। নিজের, স্বামী স্ত্রীকে কিংবা স্ত্রী স্বামীকে, বন্ধু-বান্ধুবি, ভাই-ভাবি,বোন-দুলাভাই, মা-বাবার বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা, ফেসবুক স্ট্যাটাস, ও এসএমএস। ছোট একটা লাইন লিখে আপনার প্রিয় মানুষটির বিশেষ দিনটিকে আরও রঙিন ও আনন্দময় করে তুলুন।

নিজের বা স্বামী-স্ত্রীরির বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা, ফেসবুক স্ট্যাটাস, এসএমএস

আজকাল আমারা অনেকেই জীবিকার তাগিদে পরিবার ছেড়ে দেশে বিদেশে কর্মস্থলে অবস্থান করি বা করে থাকনে। বিশেষ এই দিনে অনেক সময় ছুটি নিয়ে বাড়িতে বা প্রিয় জীবন সঙ্গীনির সাথে দেখা করার সুযোগ হয় না। নিজের বিবাহ বার্ষিকীতে স্ত্রীকে বা স্বামীকে ছোট একটি এসএমএস বা তাকে নিয়ে দু-চার লাইনের একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস লিখে তার দিনটিকে আরও করে তুলতে পারেন আনন্দের। আর যাদের এক সাথে থাকা হয় এক সাথে বিশেষ দিনটি উদযাপনের পাশাপাশি ছোট একটি এসএমএস বা শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস লেখা যেতেই পারে।

১. আমার জীবনের সবচেয়ে স্মার্ট কাজটি হলো তোমাকে জীবন সঙ্গিনী হিসেবে বেঁছে নেওয়া।

২. যদি আমাকে আবার পুনরায় জীবনসঙ্গী/সঙ্গিনী বেঁছে নিতে বাধ্য করা হয়, তাহলে সেবারও আমি তোমাকে/আপনাকে জীবন সঙ্গী/সঙ্গিনী হিসেবেই বেঁছে নিবো।

৩. শুভ ১ম, ২য়, ৩য়, ৪র্থ, ৫ম,………১০ম বিবাহ বার্ষিকী প্রিয়তমা/প্রিয়।

৪. বিশেষ এই দিনে সৃষ্টিকর্তার কাছে দোয়া ও প্রার্থনা রইলো মরন পর্যন্ত যেন তোমার কাধে কাঁধ রেখে, হাতে হাত রেখে থাকতে পারি।

৫. আজ আমাদের ___তম বিবাহ বার্ষিকী, সেই যেদিন থেকে তুমি আমার জীবনে এলে নতুন করে বাঁচতে শিখলাম, আসলে আমার বাচার জন্য তোমার

৬. তুমি এখনও আমার কাছে সবচেয়ে প্রিয় মুখ।

৭. আমার জীবন সঙ্গিনী হিসেবে তোমাকে পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে হয়। আরও অনেক দিন একসাথে বাঁচতে চাই। ভালোবাসতে চাই, ভালোবাসা পেতে চাই।

৮. তুমি আমার হৃদয়ের মালিক হয়ে গেছ, সেদিন যেদিন আমরা পবিত্র বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলাম, মহান আল্লাহকে সাক্ষী রেখে এক অপরকে গ্রহণ করেছিলাম।

৯. তোমাকে পাওয়ার দামি মুহূর্তটি আজ _ বছর পূর্ণ হল। আরও সহস্র বছর তোমাকে চাই শুধু আমার জন্য।

১০. আজকের এই দিনের জন্য আমি সৃষ্টিকর্তা মহান রবের কাছে কৃতজ্ঞ, অনেক দূর পারি দিতে চাই তোমাকে সাথে নিয়ে প্রিয়।

বড় ভাইয়ের বা বোনের বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

বড়-ছোট ভাইয়ের বিবাহ বার্ষিকীতে ভাই-ভাবিকে এবং বোনের বিবাহ বার্ষিকীতে বোন-দুলাভাইকে শুভেচ্ছা জানাতে পারেন। লিখতে পারেন ফেসবুকে কিংবা ফোন কলের মাধ্যমে উইস করাও যেতে পারে।

১১. আপু দুলাভাই ___তম বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা। আরও বেশি সুখি হও, পরিবারের সবাইকে নিয়ে প্রতিদিন আরও বেশি আনন্দে কাটুক।

১২. ভাইয়া-ভাবি তোমাদের বিবাহ বার্ষিকীতে অনেক অনেক দোয়া রইলো। আরও বেশি সুখি হও।

১৩. বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা, দোয়া করি আগামী দিনগুলোতে যে আরও বেশি সুন্দর ও সঠিকভাবে সকল দায়িত্ব পালন করতে পারো।

১৪. চাঁদের হাট হয়ে উঠুক আমার প্রিয় ভাই-ভাবির সংসার।

১৫. আপনাদের পবিত্র বন্ধন চিরকাল অটুট থাকুক। সুখী হও, অনেক অনেক শুভ কামনা।

মা বাবার বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস, এসএমএস

মা-বাবা দুনিয়ার সবচেয়ে আপন মানুষ। দুনিয়ায় আসার আগে থেকেই কত না কষ্ট-যন্ত্রণা আর ত্যাগ স্বীকার করেছেন আমাদের জন্য। আমরা বুড়ো হতে হতে আমাদের মা বাবা দুনিয়া ছেড়ে চলে যায়। অনেকের আবার মা বাবার মুখ দেখাই হয় না। তাদের মা-বাবার জন্য দোয়া রইলো। যাদের মা বাবা বেঁচে আছে আপনার যদি তাদের বিবাহ বার্ষিকীর কথা মনে থাকে তবে তাদের নিয়ে ঘরোয়া ভাবে বিশেষ দিনটি উদযাপন করতে পারেন। ফোন করে বা আপনার মা বাবা যদি ফেসবুক ব্যবহার করে তাহলে তাদের নিয়ে ছোট সুন্দর করে একটি স্ট্যাটাস দিতে পারেন।

১৬. আজ আমার আব্বু-আম্মুর ___তম বিবাহ বার্ষিকী। মহান আল্লাহর কাছে লাখো শুকরিয়া তিনি আমাকে উনাদের মাধ্যমে দুনিয়ার আলো দেখিয়েছেন।

১৭. আব্বু-আম্মু শুভ বিবাহ বার্ষিকী আরও হাজার বছর বেঁচে থাকুন।

১৮. আমার সালাম নিবেন। আমার মনে হয় আপনারা সবচেয়ে সুন্দর দম্পতি। শুভ বিবাহ বার্ষিকী আব্বু-আম্মু।

১৯. এত সুন্দর ও সুখি একটি পরিবার উপহার দেওয়ার জন্য আপনাদের অনেক অনেক ধন্যবাদ।

২০. প্রিয় মা-বাবা, আপনাদের কাছ থেকে শিখেছি। কিভাবে এক একে অপরকে বুজে সাংসারিক জীবনের চ্যালেঞ্জগুলো পার হতে হয়। আমি সত্যিই ধন্য আপনার মতো মা-বাবার স্নেহ সোহাগ পেয়ে।

২১. আমার মা-বাবা, সত্যিই আপনারা বিধাতার সবচেয়ে সেরা উপহার। বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা নিবেন।

বন্ধুর কিংবা বান্ধুবির বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা

বন্ধু বান্ধুবীর বিয়ে নিয়ে আমাদের আগ্রহের শেষ নেই। বিয়ে শাদি করার আগেই প্রেমিকাকে ভাবি বলে ডাকা আর প্রেমিককে দুলাভাই বলে ডাকা শুরু করে দেয়। বিয়ের পরে সাংসারিক এবং কর্ম ব্যাস্ততার কারনে বন্ধু-বান্ধুবীদের সাথে সেই আগের মতো আড্ডা দেওয়া হয়ে ওঠে না। তবে প্রিয় বন্ধু বা বান্ধুবীর প্রতি ভালোবাসা কি আর কমে যায়। বিশেষ দিনে তাদের জন্য দুই লাইন না লিখলে কেমনে হয়। বিবাহ বার্ষিকীর কথা মনে না থাকলেও ফেসবুকের কল্যানে জানা অনেক সহজ। যাহোক বন্ধু বান্ধুবীর বিবাহ বার্ষিকীতে এসএমএস, শুভেচ্ছা বার্তা কিংবা ফেসবুক স্ট্যাটাস লিখে তাদের উইস করতে পারেন।

২২. বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা বন্ধু/বান্ধুবি তোদের/তোমাদের দাম্পত্য জীবন সুখ-সমৃদ্ধিতে পূর্ণ হয়ে উঠুক।

২৩. দাম্পত্য জীবনের জন্য রইলো শুভ কামনা।

২৪. আজকের দিনটি তোমাদের জন্য অত্যন্ত সুন্দর দিন, তোমাদের দুজনের জন্য রইলো শুভ কামনা ও শুভেচ্ছা।

২৫. পরিবার সংসার নিয়ে অনেক বেশি ভালো থাক।

২৬. প্রিয় বন্ধু/বান্ধুবি, আজকের দিনটি নিশ্চয়ই তোদের অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ও স্মরণীয় দিন। পরস্পরের প্রতি আরও ভালোবাসা জন্মাক আরও বেশি সুখী হও। শুভ কামনা।

২৭. হ্যাপি ম্যারেজ ডে। তোদের দেখে সত্যিই ভালো লাগে। সুন্দর ও পবিত্র সম্পর্ক আরও বেশি মধু হোক দোয়া করি।

২৮. একটি নিখুঁত জুটি। হ্যাপি ম্যারেজ ডে, মনা।

মামা মামি, চাচা-চাচি, ফুপু-ফুফা, খালা-খালুর ম্যারেজ ডে শুভেচ্ছা

মামা মামি, চাচা-চাচি, ফুপু-ফুফা, খালা-খালু আমাদের খুবই কাছের ও আপন মানুষজন। তবে দিন দিন আধুনিকাতার দোহাই দিয়ে আমরা আত্মীয়-স্বজন থেকে দূরে সরে যাচ্ছি। আগে যোগাযোগের এতো মাধ্যম না থাকলেও সম্পর্ক বেশ ভালো ছিল। এখন টাকার সাথে সম্পর্ক বাড়ছে আর বিপরীতে মানুষের সাথে সম্পর্ক কমছে। আপন মানুষদের তুলনায় পর মানুষকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া শুরু করছি। এই মানুষগুলোর প্রতি আমাদের সামাজিক ও ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দায়বদ্ধতা আছে। অন্যথায় পরকালে কঠিন শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে।

বিবাহ বার্ষিকীতে মামা মামি, চাচা-চাচি, ফুপু-ফুফা, খালা-খালুকে নিয়ে ছোট একটা ফেসবুক স্ট্যাটাস লিখেতে পারেন কিংবা তাদের ফোন করে বা তাদের বাড়িতে গিয়ে চমকে দিতে পারেন।

২৯. বিবাহ বার্ষিকীর শুভেচ্ছা নিবেন মামা-মামি। আল্লাহর নিকট দোয়া করি আপনারা আরও বেশি সুখি হন, সুস্থ থাকুন।

৩০. আমার কলিজার মামা-মামি। আমার দেখা সবচেয়ে সেরা জুটি। তোমাদের এই বিশেষ দিনে শুভেচ্ছা ও শুভ কামনা রইলো।

বিবাহ বার্ষিকীতে কি গিফট দেওয়া যেতে পারে?

হাতে লেখা চিঠি, নেকলেস, ঘড়ি, নিজের লেখা কবিতা, কানের দুল, আঁকা ছবি, ফ্রেমে বাধনো ছবি, কপালে চুমু, আংটি, ড্রেস, বিমান টিকেট ইত্যাদি।

সর্বশেষ

সম্মানিত ভিজিটর, আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আপনাদের দাম্পত্য জীবনের সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করছি। যারা বিয়ে করেন নি। তাদের ভবিষ্যৎ সাংসারিক জীবনের জন্য অগ্রিম শুভ কামনা।

আমরা ইতিমধ্যে আমাদের সাইটে জন্মদিনের চমৎকার কিছু শুভেচ্ছা বার্তা ও স্ট্যাটাস পাবলিশ করেছিলাম সেখানে আপনাদের বেশ সাড়া পেয়েছি। আপনি যদি নতুন ভিজিটর হয়ে থাকেন দেখে নিতে পারেন।