https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/12/NID-For-Probashi.jpg

প্রবাসীদের ভোটার আইডি কার্ড এর জন্য আবেদন করার নিয়মঃ

লেখার শুরুতেই দেশের রত্ন, বাংলাদেশের অর্থনীতির সচল রাখার অন্যতম কারিগর সকল প্রবাসী ভাই ও বোনদের সালাম এবং শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। সৌদি আরব, কাতার, মালয়েশিয়া, ওমান, কুয়েত, বাহরাইন, লন্ডন, জাপান, কোরিয়া, ইতালি, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, যুক্তরাজ্য, সহ বিশ্বের নানা দেশে বেশিরভাগ বাংলাদেশী প্রবাসী ভাই-বোনদের অবস্থান।

একটি দেশের নাগরিকের অন্যতম পরিচয় হচ্ছে সে দেশের জাতীয় পরিচয়পত্র। তবে অনেক প্রবাসীগন সরকারিভাবে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময় দেশে না থাকার কারনে জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড (NID Card) করার সুযোগ পায় না। তবে খুশির সংবাদ হচ্ছে যে, এখন বাংলাদেশী প্রবাসীরা বিদেশ থেকেই ভোটার আইডি কার্ড করার পাশাপাশি ভোট দানেও অংশগ্রহণ করতে পারে।

আরও পড়ুনঃ বিমানে চড়ার নিয়ম ও টিপস

সম্মানিত ভিজিটর, আজকের লেখা জুড়ে আমি আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে যাচ্ছি- প্রবাসীদের ভোটার আইডি কার্ড (NID For Probashi) করার নিয়ম বা বিদেশে থেকে ভোটার হওয়ার উপায়, কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন হবে, ও এ সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

প্রবাসীদের ভোটার আইডি কার্ড করার জন্য নিচের কাগজপত্র ও তথ্যের প্রয়োজনঃ

  • আবেদনকারীর নাম ঠিকানা
  • একটি সচল মোবাইল নম্বর
  • মা-বাবার পরিচয়, ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার
  • পাসপোর্টের ফটোকপি
  • দ্বৈত নাগরিকদের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন

প্রবাসীদের ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করার নিয়ম

বিদেশ থেকে বাংলাদেশের ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরন করুন-

ধাপ-১

প্রথমে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের এই সাইটে [services.nidw.gov.bd/new_voter] গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। সাইটে প্রবেশ করার পর নতুন রেজিস্টার, নতুন নিবন্ধন ও লগ ইন করার জন্য মোট তিনটি অপশন দেখতে পাবেন। এখান থেকে নতুন নিবন্ধনের জন্য আবেদন-এ ক্লিক করুন।

ধাপ-২

একাউন্ট নিবন্ধের জন্য আপনার পাসপোর্ট অনুসারে পুরো নাম ইংরেজিতে লিখুন, জন্ম তারিখ (দিন-মাস-বছর) লিখুন। আপনার মোবাইল/কম্পিউটার স্ক্রিনে দেখানো কোডটি দিয়ে ক্যাপচা পূরণ করে বহাল বাটনে চাপুন।

ধাপ-৩

সঠিক মোবাইল নম্বরটি প্রবেশ করুন। আপনার মোবাইলে একটি OTP কোড যাবে। মোবাইল নম্বরটি মনে রাখুন। নিজের মোবাইল নম্বর না থাকলে বিশ্বস্ত কারো মোবাইল নম্বর ব্যবহার করুন যা পরবর্তী প্রয়োজনে ব্যবহার করতে পারবেন।

ধাপ-৪

মোবাইল ভেরিফিকেশন শেষে,পাসপোর্ট অনুসারে আপনার যাবতীয় তথ্য নাম, ঠিকানা, বাবা-মায়ের নাম ও প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ফরমটি পূরণ করে সাবমিটে ক্লিক করুন।

ধাপ-৫

অনলাইন আবেদন সম্পন্ন হয়ে গেলে ফরমটি বাংলাদেশ এনআইডি উইং এ চলে আসবে। এবং বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন আপনার আবেদনটি কেন্দ্রীয়ভাবে যাচাই বাছাই করবে।

ধাপ-৬

ইসির যাচাই-বাছাই শেষে আপনি যে দেশ থেকে আবেদন করবেন ওই দেশের দুতাবাস বা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা আপনার সাথে যোগাযোগ করবে এবং আপনার ছবি তুলেব এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সহ অন্যান্য তথ্য যাচাই-বাছাই করবে।

তবে বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীরা সে দেশের ইসির স্থাপিত ভোটার রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে গিয়ে অনলাইনে ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবে।

সর্বশেষ

প্রিয় ভিজিটর, সর্বশেষ তথ্য অনুসারে বর্তমানে যুক্তরাজ্য, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাতে অবস্থানরত বাংলাদেশী নাগরিকেরা এই সুযোগ পাবেন। আপনি যে দেশে অবস্থান করছেন সে দেশের বাংলাদেশী দূতাবাসে যোগাযোগ করলে বিস্তারিত তথ্য পেয়ে যাবেন। বিদেশ থেকে প্রবাসীদের ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম নিয়ে আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। বাংলাভাষায় টিপস-ট্রিকস পড়তে নিয়মিত ভিজিট করুন টিপসওয়ালী। সকল ই-সার্ভিস সম্পর্কে পড়তে ভিজিট করুন এখানে।

অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম