https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/12/pesta-nut.jpg

বাদাম নামটির সাথে সুস্বাদু ও মজা পাশাপাশি অবস্থান করলেও পুষ্টিগুণেও এটি অনন্য। সন্দেশ কিংবা আইসক্রিমের স্বাদ বাড়াতে পেস্তা বাদামের জুড়ি নেই। যদিও Pesta Nut/ Pesta Badam এর কথা আমরা অনেকেই জানি তবে সুস্বাদু ও নানা পুষ্টিগুণে ভরপুর এই বাদাম নিয়ে আমাদের অনেকের মাঝে কিছু ভুল ধারনাও প্রচলিত রয়েছে। পাশাপাশি পেস্তা বাদামের পুষ্টিগুণ, এই বাদাম খাওয়ার উপকারিতা, অপকারিতা, খাওয়ার নিয়ম, দাম সম্পর্কেও আমাদের অনেকের সঠিক ধারনা নেই।

সম্মানিত ভিজিটর, আজকের লেখাজুড়ে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো, বিশ্বের বিভিন্ন হেলথ ম্যাগাজিন ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং গবেষণার ফলাফল অনুসারে পেস্তা বাদামের উপকারিতা, অপকারিতা, খাবার নিয়ম, দাম এবং পেস্তা বাদাম সম্পর্কিত অন্যান্য বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত।

পেস্তা বাদামের পুষ্টিগুণ

আপনি হয়তো পেস্তা বাদামের পুষ্টিগুণ শুনলে অবাক হয়ে যেতে পারেন। প্রতি ১ আউন্স বা ২৮ গ্রাম পেস্তা বাদামে রয়েছে ১৫৯ ক্যালোরি, ৮ গ্রাম কার্বস, ৩ গ্রাম ফাইবার, ৬ গ্রাম প্রোটিন, ১৩ রাম ফ্যাট, ৬% পটাশিয়াম, ১১% ফসফরাস, ২৮% ভিটামিন বি৬, ২১% থিয়ামিন।

পেস্তা বাদামের ১০টি উপকারিতা

প্রিয় ভিজিটর, চলুন এ পর্যায়ে পুষ্টিকর পেস্তা বাদামের উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক:

১) অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের গুরুত্ব আমরা সবাই কম বেশি জানি। এটি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অন্য সব বাদাম ও বীজ জাতীয় খাবারের তুলনায় পেস্তা বাদামে কয়েকগুণ বেশি মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। আর এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আমাদের শরীরের কোষের ক্ষতি প্রতিরোধ করে এবং ক্যান্সারের মতো রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

২) কম ক্যালোরি উচ্চ প্রোটিন

যদিও বাদামের নানান উপকারিতার রয়েছে। তবে এগুলোর মধ্যে Pesta বাদামে সবচেয়ে কম ক্যালোরি রয়েছে। আমরা উপরেও বলেছি, প্রতি ২৮ গ্রাম পেস্তা বাদামে প্রায় ১৫৯ ক্যালোরি থাকে যেখানে আখরোটে ১৮৫ ক্যালোরি এবং পেকানে ১৯৩ ক্যালোরি। আর মোট ওজনের প্রায় ২০% প্রোটিন পাওয়া যায়। পাশাপাশি অন্যান্য বাদামের তুলনায় অ্যামিনো অ্যাসিডের পরিমাণও বেশি এই বাদামে।

৩) ওজন কমাতে সাহায্য করে

শরীরের বেশি ওজন নিয়ে আমাদের কতো না অভিযোগ। ওজন কমানোর জন্য কতো ধরণের খাবার খাই কিংবা ব্যায়াম করি। হ্যা খাদ্যাভ্যাস, শারীরিক পরিশ্রম আমাদের শরীরের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলে। তবে আপনি জেনে অবাক হবেন যে পেস্তা বাদাম আপনার শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে। পেস্তায় উচ্চ ফাইবার ও প্রোটিন থাকে তাই এটি কম খেতে সাহায্য করে। একটি ১২ সপ্তাহের ওজন কামানোর প্রগ্রামে যারা প্রতিদিন বিকেলে ৫৩ গ্রাম পেস্তা বাদাম খেয়েছিল তাদের বডি মাস ইনডেক্স দ্বিগুণ হ্রাস পেয়েছিলো।

৪) অন্ত্রের উপকারী ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধিতে সাহায্য করে

আমরা জানি এতে অনেক বেশি ফাইবার থাকে। যা আমদের অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার জন্য বেশ ভালো। এটি খাওয়ার ফলে আমাদের সাধারণ বাদাম খাওয়ার তুলনায় অন্ত্রে ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা অনেক বেশি বেড়ে যায়। যা উপকারী শর্ট-চেইন ফ্যাটি অ্যাসিড যেমন বুটাইরেট তৈরি করে।

৫) কোলেস্টেরল ও রক্তচাপ কমায়

রক্তচাপ এবং কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে পেস্তা বাদাম দারুণ কাজের। ২০১৬ সালে একটি গবেষণায় দেখা যায় নিয়মিত পেস্তা গ্রহণ কারীদের এলডিএল (খারাপ) কোলেস্টেরল হ্রাস এবং (এইচডিএল) ভাল কোলেস্টেরল বৃদ্ধি পেয়েছে। ২১ টি গবেষণায় দেখা যায় যারা নিয়মিত পেস্তাবাদাম খাওয়ার ফলে রক্তচাপের উপরের সীমা ১.৮২ মিমি/এইচজি এবং নিম্ন সীমা ০.৮ মিমি/এইচজি কমে যায়। (সোর্স)

৬) রক্তনালীর উন্নতি

রক্তনালীর স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য Pesta Badam বেশ উপকারী। কারণ এটি অ্যামিনো অ্যাসিড এল-আরজিনিনের একটি দারুণ উৎস যা আমাদের শরীরে নাইট্রিক অক্সাইডে রূপান্তরিত হয়। আর এটি আমাদের রক্তনালীকে প্রসারিত করতে যাহায্য করে।

৭) সুগারের মাত্রা কমায়

অন্যান্য বাদামের তুলনায় পেস্তাবাদামে কার্বোহাইড্রেট বেশি থাকলেও এতে গ্লাইসেমিক সূচক কম থাকে ফলে এটি আমাদের রক্তে শর্করার পরিমাণ বৃদ্ধি ঘটায় না। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায় এটি খাওয়ার পরে রক্তে শর্করার পরিমাণ ৯% পর্যন্ত হ্রাস পায়। যা ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়। ডায়াবেটিসের চিকিৎসা ও খাবার

৮) চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি

অন্যান্য বাদামের তুলনায় পেস্তাবাদামে সবচেয়ে বেশি লুটেইন এবং জিক্সান্থিন রয়েছে, যা আমাদের চোখের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এগুলো আমাদের নীল আলো এবং বয়সের সাথে ম্যাকুলার অবক্ষয়ের কারনে চোখের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে।

৯) ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়

অনেক গবেষণায় দেখা যায়, এই বাদাম ক্যান্সার প্রতিরোধেও কাজ করে। এর কারণ হচ্ছে এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন বি৬ যা আমাদের রক্তে ডব্লিউবিসি কাউন্ট বাড়ায়। শ্বেত রক্ত কনিকা শুধুমাত্র ফ্রি র‍্যাডিক্যালের বিরুদ্ধেই নয়, ক্যান্সার সৃষ্টির উপাদানের বিরুদ্ধেও কার্যকর।

১০) সুস্বাদু

বিভিন্ন খাবারের স্বাদের বিভন্নতা আনতে এই বাদামের সুনাম রয়েছে। যেমন আইসক্রিম, সন্দেশ এর প্রচুর ব্যবহার দেখা যায়।

পেস্তা বাদামের অপকারিতা

পেস্তা বাদাম খাওয়ার নানা উপকারিতার কথা আমাদের জানা থাকলেও এর ক্ষতি বা অপরকারিতার কথা আমাদের অনেকেরই জানা নেই। অবস্য অপকারিতা বললে ভুল হবে বলা যায় ঝুঁকি ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। অতিরিক্ত মাত্রায় পেস্তা বাদাম খাওয়ার ফলে বদ হজম, এলারজি, ওজন বেড়ে যাওয়া, এমনকি কিডনি জনিত সমস্যা হতে পারে।

প্রশ্ন ও উত্তর

পেস্তা বাদাম খাওয়ার নিয়ম কি?

প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত যে কোন কিছু খাওয়াই ক্ষতিকর। বিশেষজ্ঞদের মতে প্রতিদিন ৩০ টি পেস্তা বাদাম খাওয়াই উত্তম। আপনি চাইলে ভাজা, কাঁচা কিংবা সালাদ এর সাথে এটি খেতে পারেন।

গর্ভবতী মহিলারা কি পেস্তা বাদাম খেতে পারবে?

পেস্তায় প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা শরীরে রক্তকণিকাকে অক্সিজেন সরবরাহে সাহায্য করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। গর্ভবতী মহিলাদের নিয়মিত পরিমাণ মতো পেস্তাবাদাম খাওয়া যেতে পারে। তবে কোন বিশেষ সমস্যা থাকলে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উত্তম।

পেস্তা বাদামের দাম কতো?

১ কেজি পেস্তা বাদামের দাম ১২০০ টাকা থেকে ১৫০০ টাকা। বাজারে ইন-শেল এবং খোসাযুক্ত উভয় ধরণের বাদাম কিনতে পাওয়া যায়।

Pesta badam/nut price in Bangladesh anywhere between TK.1200 to TK.1500 Per KG.

সর্বশেষ

প্রিয় ভিজিটর আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আমাদের লেখা নিয়ে আপনার কোন মতামত, অভিযোগ কিংবা পরামর্শ থাকলে লিখতে পারেন আমাদের কাছে। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।