https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/05/shankh-powder-in-Bangladesh.jpg

সম্মানিত ভিজিটর আজকের লেখাজুরা বিস্তারিত আলোচনা করবে শঙ্খ কি, গুঁড়া বা পাউডারের উপকারিতা, রূপচর্চায় এর ব্যবহার, কীভাবে খেতে হয়, শঙ্খের দাম, কোথায় কিনতে পাওয়া যায়, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে বিস্তারিত।

শঙ্খ কি?

(Shankh-powder) শঙ্খ হচ্ছে একটি সামুদ্রিক শিকারি সামুক যা ভারত মহাসাগরে বেশি পাওয়া যায়। একে শাঁখও বলা হয়ে থাকে। হিন্দুধর্মে পূজার জন্য শাঁখের ব্যবহার হয়। তবে রুপচর্চা ও আয়ুর্বেদ চিকিৎসায়ও শঙ্খের ব্যবহার দেখা যায়। শঙ্খ বা শাঁখ মূলত দুই ধরনের হয়ে থাকে। ১) ডানাবর্তী ও ২) বামাবর্তী। অনেকে এক কম্বু, বাদ্যশঙ্খ, শাঁখও বলে থাকে।

শঙ্খ চূর্ণ বা পাউডার

শাঁক বা শঙ্খ শামুক থেকে তৈরি গুঁড়াই হচ্ছে হচ্ছে শঙ্খ চূর্ণ বা পাউডার। মূলত শঙ্খ শামুকের খোল বেটে বা মেশিনের সাহায্যে গুঁড়া করে এই পাউডার তৈরি করা হয়। এবং পরবর্তীতে এই পাউডার বা গুঁড়া ত্বক ও চুলের যত্নে ব্যবহার করা হয়।

শঙ্খ গুঁড়ার দাম

বাজারে ব্র্যান্ড ভেদে শাঁখ বা শঙ্খ গুঁড়া বা পাউডারের দাম এর পার্থক্য রয়েছে। ১০০ গ্রাম শঙ্খ গুঁড়ার দাম ২০০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা।

রুপচর্চায় শঙ্খ গুঁড়ার ব্যবহার

অন্যান্য প্রসাধনীর মতো স্কিন বা ত্বকের ধরন ভেদে শঙ্খ গুঁড়ার ব্যবহার আলাদা। স্কিনের পাশাপাশি চুলের যত্নেও এই পাউডার ব্যবহার করা হয়। এটি মূলত আপনার ত্বকের ব্রন দূর করতে, চর্মরোগ দূর করতে সাহায্য করে।

১) র‍্যাস ও অ্যালারজি দূর করতে

আমাদের মধ্যে স্কিনে র‍্যাস ওঠা, অ্যালার্জি একটি কমন ব্যাপার। অনেকের মাঝেই এই সমস্যা দেখা যায়। আপনার মধ্যেও যদি এই একই ধরনের সমস্যা থেকে থাকে তবে একটি শঙ্খ নিয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করুন। এ পর্যায়ে এটি পরিষ্কার ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভরে রেখে দিনে। সারা রাত এভাবে রেখে সকাল বেলা আপনার ত্বকে আস্তে আস্তে ম্যাসাজ করুন। নিয়মিত করলে অল্প দিনের মধ্যে চর্মরোগ, অ্যালার্জি ও র‍্যাস জনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

২) ত্বকের উজ্জলতা বাড়াতে

ত্বকের উজ্জলতা বাড়াতেও এটি বেশ ভালো কাজ করে। আপনারা ইতিমধ্যে মুলতানি মাটি সম্পর্কে জেনে থাকবেন রূপচর্চায় মুলতানি মাটির বহুল ব্যবহার রয়েছে। গোসলের আগে সমপরিমান শঙ্খ পাউডার ও মুলতানি মাটি নিয়ে মুখে লাগিয়ে আস্তে আস্তে ম্যাসাজ করুন। নিয়মিত ব্যবহারে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়। পাশাপাশি এটি রিঙ্কেল দূর করতেও বেশ ভালো কাজ করে।

৩) ডার্ক সার্কেল দূর করতে

ডার্ক সার্কেল দূর করার উপায় নিয়ে ইতিমধ্যে আমরা একটি বিস্তারিত আর্টিকেল পাবলিশ করেছি। যাহক ডার্ক সার্কেল দূর করতেও এটি ভালো কাজ করে। চোখের নিচের ডার্ক সার্কেল দূর করতে শঙ্খের গুঁড়ার সাথে পরিমানমতো গোলাপ জল মেশান এবং চোখের নিচে লাগান। তবে এক কাজটি খুব সাবধানে করতে হবে। যেন চোখের মধে চলে না যায়। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে মুখ মুছে ফেলুন।

৪) ব্রণ দূর করতে

ব্রণ দূর করার উপায় নিয়েও আমারা ইতিমধ্যে একটি বিশাল আর্টিকেল শেয়ার করেছি। যাহোক আপনার মুখে ব্রণ থাকলে শঙ্খ হতে পারে একটি ভালো সমাধান। ব্রণ দূর করতে যে সকল ফেস প্যাক ব্যবহার করেন তার সাথে এক চিমটি শঙ্খ পাউডার মিলিয়ে নিলে স্কিনে থাকা ব্রণের কালো দাগ খুব সহজেই দূর হয়ে যায়।

৫) চুলের যত্নে

আমাদের অনেকেরি চুলের রং ফ্যাঁকাসে হয়ে যাওয়ার সমস্যা রয়েছে। অনেক শ্যাম্পু ও তেল ব্যবহারের পরে প্রতিকার পাওয়া যায় না। আপনার সাথেও যদি এমনটা হয়ে থাকে তবে আপনি এই পদ্ধতিটি অনুসরন করতে পারেন। একটি পরিষ্কার শঙ্খের শোলে পরিষ্কার ঠাণ্ডা পানি ভরে রাখুন। এভাবে সারা রাত রেখে দিন। পরের দিনে এই পানি সাথে এক টেবিল চামচ পরিমা গোলাপ জল মেশান। এর পর এই মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

৬) অন্যান্য

ছাড়াও সানটান ও শ্যামলা ত্বকে উজ্জলতা আনতে আধা চামচ মুলতানি মাটি ও এক চিমটি পরিমান হলুদের গুঁড়া, ১/২ চামচ লেবুর রস ও এক চিমটি পরিমান শঙ্খ গুঁড়া ভালোভাবে মিশিয়ে পেস্টের মতো বানিয়ে স্কিনে লাগাতে পারেন।

ত্বকের যত্নের শঙ্খ গুঁড়া ব্যবহারের সাবধানতা

এতো সব উপকারের পাশাপাশি আপনাকে কিছু সাবধানতাও অবলম্বন করতে হবে। কেননা মনে রাখতে হবে এটি এক প্রকার শামুকের গুঁড়া। তাই জোরে ম্যাসাজ করলে আপনার ত্বকের উপকারিতার বদলে সর্বনাশ হয়ে যেতে পারে। যা আপনার স্কিনের জ্বালা পোড়ার কারন হয়ে দাড়াতে পারে।

স্বাস্থ্যের জন্য শঙ্খ ভস্ম উপকারিতা

ভস্ম অর্থ ছাই। এই শঙ্খ ভস্ম আয়ুর্বেদিক ঔষধ হিসেবে ব্যবহার হয়ে থাকে। খাবার পরে কিংবা আগে মধু, লেবুর শরবত, কিংবা ত্রিফলা সিরাপের সাথে মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এটি আপনাকে বদ হজম, পেতে ব্যাথা, গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি দিবে। আপনি আয়ুর্বেদিক ঔষধয়ালায়ে ভস্ম কিনতে পাবেন।

কোথায় কিনতে পাওয়া যায়

বাজারে নকল পণ্যের ভিড়ে আসল পন্য খুঁজে পাওয়া খুবই কঠিন ব্যাপার। বিশেষ করে প্রসাধনি সামগ্রী। দেশের বিভিন্ন অনলাইন শপে ও কসমেটিক্স এর দোকানে এই গুঁড়া কিনতে পাবেন। এছাড়াও ঢাকার স্বামীবাগ এলাকায় পাইকারি কিনতে পাওয়া যায়।

আসল শঙ্খ গুঁড়া বা পাউডার চেনার উপায় কি?

আসল আর নকল শঙ্খচূর্ণ বা পাউডার চেনার উপায় হচ্ছে, আসল পাউডার ত্বকে লাগালে একটু গরম অনুভুত হবে অন্য দিকে নকল গুঁড়া ত্বকে লাগালে এ রকম কোন অনুভুতি আসবে না।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

নানা উপকারিতার পাশাপাশি এই গুঁড়া পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত নয়। মূলত আপন যদি শঙ্খ ভস্ম খালি খাওয়ার চেষ্টা করেন তবে আপনার গলায় ও পেতে জ্বালাপোড়া করতে পারে। তাই মধু কিংবা অন্য শরবতের সাথে মিশিয়ে খাওয়া উত্তম।

এবং স্কিনে ব্যবহার করলে অবশ্যই খুব সামান্য পরিমান নিয়ে ব্যবহার করুন ও আস্তে আস্তে ম্যাসাজ করুন। অন্যথায় আপনার মুখে র‍্যাস দেখা দেওয়া ও জ্বালাপোড়া করতে পারে। ছোটবাচ্চা ও গর্ভবতী মায়েদের খাওয়া ও ব্যবহার না করার পরামর্শ রইলো। 

সর্বশেষ

প্রিয় ভিজিটর, আজকের মতো এখানে শেষ করছি। কোন প্রশ্ন, মতামত, অভিযোগ, কিংবা পরামর্শ থাকলে শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে। লেখাটি শেয়ার করতে পারেন আপনার ফেসবুক কিংবা ইন্সটাগ্রাম ওয়ালে।

অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুসারে কোন ধরনের সেবন ও ব্যবহারের পরামর্শ রইলো।

Spread the love