https://tipswali.com/wp-content/uploads/2021/09/soap.jpg

দৈনন্দিন জীবনের অন্যতম প্রয়োজনীয় পন্য সাবান। তাই সঠিক পন্য নির্বাচন ও ব্যবহার জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শুধু এই করোনা কালীন সময়ে না সাবানের ব্যবহার বেশ পুরাতন, রূপচর্চা কিংবা জীবাণুমুক্ত করনের জন্য সাবানের ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। টেলিভিশনে কিংবা অনলাইনে নিত্য নতুন নতুন ব্র্যান্ডের সাবানের রঙচটা-আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দেখতে দেখতে অনেকেই ক্লান্ত। অনেক সময়তো সাবান না মডেল কিসের বিজ্ঞাপন দেয় তা বুজে ওঠা মুশকিল হয়ে যায়। আর এই করোনা তো সবান কোম্পানির মার্কেটিংএর অন্যতম হাতিয়ার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কিন্তু বিভিন্ন ধরনের সাবানে থাকা উপাদান ও গুনাগুনের জন্য এদের ব্যবহার ও কার্যকারিতাও আলাদা আলাদা। তাই ভুল ব্যবহারে বা ভুল সাবান নির্বাচনের কারনে উপকারের বদলে ক্ষতিও হতে পারে।

প্রিয় ভিজিটর, নিত্যদিনের মতো আজকের লেখার বিষয়বস্তু সম্পর্কে আপনাদের ইতিমধ্যে ধারনা হয়েচ গেছে। হ্যা সম্মানিত ভিজিটর আজকের লেখাজুড়ে আমি আপনাদের সাথে সাবান সম্পর্কিত নানা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আলোচনা করবো। বিস্তারিত ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করবো- বিভিন্ন ধরনের সাবান, এদের ব্যবহার বা কোন সাবান কোন কাজে ব্যবহার করবেন। উৎপাদন প্রক্রিয়া এবং সোপ সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

১. গ্লিসারিন সোপ

মূলত গ্লিসারিন তেল বা চর্বির একটি উপাদান। যেকন হ্যান্ডমেড সোপে গ্লিসারিন থাকে। সাবান বা সোপ তৈরির প্রক্রিয়ার রাসায়নিক প্রতিক্রিয়ার উপজাত। গ্লিসারিন মূলত ময়েশ্চারাইজারের জন্য। এই ধরনের সোপ শুধু আপনার স্কিনকে ময়েশ্চারাইজ করে না পাশাপাশি সব ধরনের ত্বকের জন্য সমানভাবে কার্যকরী। এটি আপনার ত্বককে সুস্থ রাখতেও সমান কাজ করে। এই ধরনের সাবাগুল বলতে গেলে ১০০% প্রাকৃতিক। যাদের স্কিন একটু বেশি সংবেদনশীল তারা প্রায়ই বলে থাকে বিউটি বার সাবান তাদের স্কিনকে রুক্ষ করে তোলে। আর এর কারন হচ্ছে এতে কেমিক্যাল উপস্থিত। তাই যাদের স্কিন সংবেদনশীল তারা গ্লিসারিন সোপ ব্যবহার করুন।

পড়ুনঃ মিশ্র ত্বকের যত্ন নেওয়া উপায়

২. লিকুইড সোপ

নাম থেকেই বুজতে পারছেন তরল সাবান বা লিকুইড সোপ কেমন হতে পারে। এগুলো মূলত হ্যান্ড ওয়াশ, বডি ওয়াশ, থালা বা ডিশ ওয়াশিং এর জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। অনেক সময় মেঝে পরিষ্কারের জন্যও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। অন্যান্য সাবান তৈরির চেয়ে এইগুলো তৈরি করা বেশ জটিল। এতে বিভিন্ন ধনের কেমিক্যাল উপাদান ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

৩. লন্ড্রি সাবান

কাপর কাচার সাবানের সাথে আমরা সবাই কম বেশি পরিচিত। তিব্বত ৫৭০ লন্ড্রি সাবানের বেশ সুনাম আছে। এটি জামাকাপড় পরিষ্কার করার পাশাপাশি হাতের স্কিনেরও কোন ক্ষতি করে না। আরও একটি ভালো মানের লন্ড্রি সোপ হচ্ছে কেয়া বোল সাবান।

৪. মেডিকেটেড বা ওষুধি সাবান

স্কিনের সমস্যা সমাধানের জন্য অনেক ডাক্তার বিভিন্ন সাবান ব্যবহারের পরামর্শ দেয়। ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করার জন্য মেডিকেটেড সাবানে অতিরিক্ত পরিমানে এন্টিসেপটিক ও জীবাণুনাশক থাকে।

৫. বিউটি সোপ

কসকো সাবান আর তিব্বত বিউটি সোপের বিজ্ঞাপন দেখতে দেখতে বড় হওয়া জেনারেশন জানে কেমন ছিল সেইদিনগুলো। যাহোক বাজারে যেসব বিউটি সোপ পাওয়া যায় এগুলো মূলত বিভিন্ন ধরনের সুগন্ধি ও স্কিনের জন্য বিশেষ উপাদান দিয়ে এই ধরনের সোপ প্রস্তুত করা হয়। এই সাবানেও গ্লিসারিন ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

৬. ট্রান্সপারেন্ট বা স্বচ্ছ সাবান

তাপ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই সাবান প্রস্তুত করা হয়ে থাকে। এই জাতীয় সোপে সাধারণত অ্যালকহলের কিছু ফর্ম যোগ করা হয়। তবে অ্যালকোহলের মতো কার্যকর নয়।

৭. রান্না ঘরের সাবান

এই ধরনের সোপ মূলত কিচেন বা রান্নাঘরের জিনিসপত্র পরিষ্কার করার জন্য বিশেষ ভাবে প্রস্তুত করা। এতে জীবাণুদূর ও তেল তেল দূর করার উপাদান থাকে।

৮. গেস্ট সোপ

সাধারণ সাবানের ছোটগুলোকে মিনি বা গেস্ট সোপ বলা হয়ে থাকে। অনুষ্ঠানে হাত ধোয়া বা অতিথিদের জন্য এই ধরণের সোপ দেওয়া হয়।

৯. নতুনত্বের বা কাস্টমাইজ সাবান

অনেক সময় বিভিন্ন আকারের ও ডিজাইনের সোপ কিনতে পাওয়া যায়। যেমন- মাছ আকৃতির, ফুল, কেক কিংবা অন্য ডিজাইনের। আবার এই সকল সাবানে বিশেষ ফ্লেবারও যোগ করা হয়। বিভিন্ন দেশে শিশুদের আনন্দ ও বিনোদনের জন্যও কেনা হয়ে থাকে।

সর্বশেষ

অনেকেই দেশি পন্যের চেয়ে বিদেশী পন্যে মাতাল আসলে দেশে প্রস্তুত এর কারনে সরকারকে কম ভ্যাট দিতে হয় আর কাঁচামাল খরচ কম হওয়াইয় উৎপাদন খরচও কম তাই দেশি পন্যের দাম কম হয়ে থাকে। বাংলাদেশের সাবান ইন্ডাস্ট্রির বেশ সুনাম রয়েছে। দেশি পন্য কিনুন দেশীয় কোম্পানি ও উদ্যোক্তাদের বাঁচিয়ে দেশের টাকা দেশে রাখুন।

আমাদের লেখা নিয়ে আপনার কোন মতামতা, অভিযোগ কিংবা পরামর্শ থাকলে শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে। নিয়মিত বাংলা ভাষায় টিপস পড়তে ভিজিট করুন আপনাদের প্রিয় টিপসওয়ালী। সাথেই থাকুন, সুস্থ থাকুন।

আরও পড়ুনঃ চুলে জেল ব্যবহারের সঠিক নিয়ম